eBooks ReviewEducationTrending News

প্রফেসর ড. এস. এম. আব্দুছ ছালাম রচিত পাঁচটি ইসলামী বই – পিডিএফ ফাইল

আজকে আমরা আলোচনা করবো প্রফেসর ড. এস. এম. আব্দুছ ছালাম (রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় – আরবী বিভাগ) রচিত সেরা ৫ টি ইসলামিক বই নিয়ে। বই গুলোর মধ্যে রয়েছে “ইসলামী আকীদার স্বরূপ ও প্রকৃতি”, “কুরআন-হাদীসের আলোকে পরিবার গঠন ও সন্তান প্রতিপালন”, “সুন্নাতী জীবন”, “মহানবীর (সা.) জীবন প্রবাহ”, “আরবী সাহিত্য প্রতিভা”। যে কোন পাঠক খুব সহজেই বই গুলোর পিডিএফ ফাইল ডাউনলোড (PDF File Download) করে নিতে পারবেন।

ইসলামী আকীদার স্বরূপ প্রকৃতি – প্রফেসর ড. এস. এম. আব্দুছ ছালাম

ইসলামী আকীদা-বিশ্বাস একটি চিরন্তন ও শাশ্বত বিষয়। যা পৃথিবীর কোনো কল্যাণকর জ্ঞান-বিজ্ঞান, বিদ্যা-বুদ্ধির সাথে সাংঘর্ষিক ও অসামঞ্জস্যপূর্ণ নয়। বরং মানুষের সুস্থ বিবেক-বুদ্ধি, পরিচ্ছন্ন চিন্তা-চেতনা, উত্তম স্বভাব-প্রকৃতির সাথে সুসামঞ্জস্য ও সুসংগতিপূর্ণ। যা পারস্পরিক সম্পর্ক ও সম্প্রীতি বৃদ্ধির মাধ্যমে মানবজাতিকে সংঘবদ্ধ ও ঐক্যবদ্ধ করে তুলে। শারীরিক-মানসিক সকল বৈধ চাহিদা ও প্রয়োজন পূরণের ক্ষেত্রে সমতা রক্ষা করে। পার্থিব কল্যাণ, শান্তিপূর্ণ সহাবস্থান ও পরকালীন সফলতা লাভের মূল ভূমিকা পালন করে। অন্যদিকে ভ্রান্ত, মনগড়া ও ভ্রষ্ট আকীদা অসংগতি ও অসামঞ্জস্যপূর্ণ। এগুলোর মাঝে পরস্পর ৈবপরীত্য ও নানা বিরোধ পরিলক্ষিত হয়। যা মানুষের সুসম্পর্ক ও ঐক্য বিনষ্ট করে। পরস্পরের মাঝে বিরোধ ও ভাঙ্গনের সৃষ্টি করে।

ইসলামী আকীদার স্বরূপ ও প্রকৃতি - প্রফেসর ড. এস. এম. আব্দুছ ছালাম
ইসলামী আকীদার স্বরূপ ও প্রকৃতি – প্রফেসর ড. এস. এম. আব্দুছ ছালাম

ফলে সমাজে চরম অ‣নক্য, বিভেদ ও হিংসাত্মক মনোভাব বিরাজ করে।  মুসলিম উম্মাহর এ দুঃসময় ও আকীদা-বিশ্বাসের চরম অবনতির যুগে ইসলামী সহীহ আকীদা ও ভ্রান্ত আকীদার মাঝে পার্থক্য করা সময়ের দাবী। এ ব্যাপারে ইসলামী চিন্তাবিদ, গবেষক ও সুলেখক ড. এস. এম. আব্দুছ ছালাম বিরচিত ‘ইসলামী আকীদার স্বরূপ ও প্রকৃতি’ শীর্ষক গ্রন্থটি এক সময়োপযোগী প্রশংসনীয় উদ্যোগ। এ গ্রন্থে তিনি কুরআন হাদীসের আলোকে ইসলামী আকীদা-বিশ্বাসজনিত বিষয়গুলো নিয়ে জ্ঞানগর্ভ ও তথ্যবহুল আলোচনা করেছেন। ইসলামী সহীহ আকীদার স্বরূপ উন্মোচনের পাশাপাশি ভ্রান্ত আকীদা-বিশ্বাস ও মতবাদগুলো তুলে ধরেছেন। যেন একজন ব্যক্তি সঠিক আকীদা-বিশ্বাসের পরিচয় লাভ করতে পারেন এবং ভ্রান্ত ও ভ্রষ্ট আকীদা সম্পর্কে জেনে তা থেকে বেঁচে থাকতে পারেন। ইসলামের প্রকৃত উদ্দেশ্যকে হৃদয়ে ধারণ করে সুন্দর, সুশৃঙ্খল ও পরিশীলিত জীবন-যাপন করতে পারেন। সর্বোপরি দুনিয়া-আখেরাতে কল্যাণ ও সফলতা অর্জনে সক্ষম হন।

পিডিএফ ফাইল ডাউনলোড: ইসলামী আকিদার স্বরূপ ও প্রকৃতি

কুরআনহাদীসের আলোকে পরিবার গঠন সন্তান প্রতিপালন – প্রফেসর ড. এস. এম. আব্দুছ ছালাম

বর্তমান সময়ে আমরা অনেক তরুণ ও যুবককেই দেখি যে, তারা পরিবারের পক্ষ থেকে সঠিক পরিচর্যা ও প্রকৃত শিক্ষা না পাওয়ার ফলে বিপথগামী ও পথভ্রষ্ট হচ্ছে; ধর্মীয় বিধি-বিধান পালনে উদাসীনতা ও শৈথিল্য প্রদর্শন করছে, তমসাচ্ছন্ন আঁধারে ঢাকা কণ্টকাকীর্ণ দুর্গম পথে অবলীলায় হেঁটে চলছে; মাদক ও নেশা জাতীয় দব্র্য গ্রহণ করছে; কুপ্রবৃত্তি চরিতার্থ করার জন্য অনৈতিক সম্পর্ক স্থাপন করছে; নীতি- নৈতিকতা ও মানবিক মূল্যবোধ বিসর্জন দিয়ে অন্যায়-অনাচার, ব্যভিচার-পাপাচার, অশ্লীলতা ও শরী’আত গর্হিত কাজে লিপ্ত হচ্ছে; অনেকেই আবার বিশেষ কিছু স্বার্থান্বেষী-কুচক্রী মহলের প্ররোচণা ও খপ্পরে পড়ে গোড়ামী, চরমপন্থা ও জঙ্গিবাদের সাথে জড়িয়ে পড়ছে; ধর্ম, রাষ্ট্র ও মানবতা বিরোধী নানাবিধ অপকর্মে লিপ্ত হয়ে জনজীবনকে বিপর্যস্ত করে তুলছে এবং বিজাতীয় অপসংস্কৃতির নগ্ন স্রোতধারায় গা ভাসিয়ে দিচ্ছে। ফলে তাদের জীবনের ছন্দপতন ঘটছে, উজ্জ্বল সম্ভবনাময় ভবিষ্যৎ অন্ধকারের অতল গহ্বরে হারিয়ে যাচ্ছে।

কুরআন-হাদীসের আলোকে পরিবার গঠন ও সন্তান প্রতিপালন - লেখকঃ ড. এস. এম. আব্দুছ ছালাম 
কুরআন-হাদীসের আলোকে পরিবার গঠন ও সন্তান প্রতিপালন – লেখকঃ ড. এস. এম. আব্দুছ ছালাম

অথচ তরুণ ও যুবসমাজ হলো একটি দেশ ও জাতির প্রাণ, আগামী দিনের কাণ্ডারী, ভবিষ্যত কর্ণধার, উন্নতি ও অগ্রগতির মূল চালিকাশক্তি। তাই আজকের শিশু-কিশোরদেকে শৈশব থেকেই সঠিক পথে পরিচালিত করতে হবে; তাদেরকে ইসলামী আদর্শে উজ্জীবিত করতে হবে; চরিত্রবান, আদশর্বান, ন্যায়পরায়াণ ও সুশিক্ষায় শিক্ষিত করে গড়ে তুলতে হবে। আর এই গুরুদায়িত্ব সর্বপ্রথম পিতা-মাতা ও অভিভাবকদেরকে-ই অত্যন্ত যত্নের সাথে পালন করতে হবে। শিশু-কিশোরদের শারীরিক, মানসিক ও বুদ্ধিবৃত্তিক সুস্থ বিকাশ কীভাবে ঘটানো যায়; তাদরেকে কীভাবে সুশিক্ষায় শিক্ষিত করে ইসলামের পথে পরিচালিত করা যায়; কীভাবে তাদের হৃদয়ে ইসলামের প্রকৃত শিক্ষা বদ্ধমূল করে দেওয়া যায়; ধর্মীয় রীতি-নীতি পালনের মাধ্যমে তাদেরকে কীভাবে আদশর্ ও আলোকিত মানুষ হিসেবে গড়ে তোলা যায়, জীবনের শুরুতেই নীতি-নৈতিকতা, মানবিক মূল্যবোধ ও মনুষ্যত্ববোধ জাগ্রত করা যায়– এ বিষয়টিই “কুরআন-হাদীসের আলোকে পরিবার গঠন ও সন্তান প্রতিপালন” শীর্ষক গ্রন্থে অত্যন্ত সাবলীল ও সহজ-সরল ভাষায় উপস্থাপন করা হয়েছে।

পিডিএফ ফাইল ডাউনলোড: কুরআন-হাদীসের আলোকে পরিবার গঠন ও সন্তান প্রতিপালন

সুন্নাতী জীবন – প্রফেসর ড. এস. এম. আব্দুছ ছালাম

মানবজাতি যখন অজ্ঞতা, মূর্খতা, বর্বরতা, কুসংস্কার, মানব মস্তিষ্ক প্রসূত অবাস্তব ও অন্ধ ধর্ম বিশ্বাসের তমসাচ্ছন্ন আঁধারে নিমজ্জিত ছিল, ঠিক তখন-ই ইসলাম তাদের মুক্তির জন্য আলোকবর্তিকা রূপে আবির্ভূত হলো। জীবন যাপনের ক্ষেত্রে তাদেরকে সুন্দর, সুশৃঙ্খল এবং সর্বোত্তম রীতি-নীতি ও আচারআচরণ শিক্ষা দিলো। জীবনের নানা ক্ষেত্রে তাদের অনুসৃত অপরিকল্পিত, খারাপ ও নষ্ট জীবনাচার পরিহারের নির্দেশ প্রদান করলো। ব্যক্তি জীবন থেকে নিয়ে পারিবারিক, সামাজিক, রাষ্ট্রীয় ও ধর্মীয় জীবনসহ সকল ক্ষেত্রে ইসলামী বিধিবিধান, আচার-আচরণ ও রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের জীবনধারণ পদ্ধতি অনুসরণের জন্য উৎসাহিত ও অনুপ্রাণিত করলো। ফলশ্রুতিতে মানব কল্যাণের জন্য প্রণীত ইসলামী বিধি-বিধানের পরিপূর্ণ অনুসরণের মাধ্যমে যুগের সবচেয়ে নিকৃষ্ট ও অবহেলিত মানুষগুলো হয়ে উঠলো সর্বোত্তম মানুষ; বিবেচিত হলো সর্বশ্রেষ্ঠ রূপে; ইসলামের গে․রবময় ইতিহাসের পাতায় তারাই হলো সবচেয়ে বেশি মূল্যায়িত ও সম্মানিত। আল্লাহ তা‘আলা তাদের শানেই অবতীর্ণ করলেন ‘রাদিয়াল্লাহু আনহুম ওয়া রাদু আনহু।’ (সূরা তওবা, আয়াত: ১০০)

সুন্নাতী জীবন - প্রফেসর ড. এস. এম. আব্দুছ ছালাম
সুন্নাতী জীবন – প্রফেসর ড. এস. এম. আব্দুছ ছালাম

সুন্নাতী জীবন বলতে সাধারণত ইসলামী বিধি-বিধান, রীতি-নীতি ও আচারআচরণকে বুঝায়। এখানে সুন্নাতী জীবন বলতে মানব জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে ইসলামী বিধি-বিধান, রীতি-নীতি ও আচার-আচরণের ক্ষেত্রে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ও সাহাবায়ে কেরামের জীবনাচার ও কার্য সম্পাদন পদ্ধতির পরিপূর্ণ অনুসরণকে বুঝানো হয়েছে।  মানব জীবনে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সুন্নাতের অনুসরণের গুরুত্ব অপরিসীম। কেননা বান্দার আমল ও নেক কাজসমূহ তখন-ই আল্লাহ তা‘আলার নিকট গৃহীত হবে যখন তা রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের দেখানো নিয়মানুযায়ী সম্পাদন করা হবে। আর আল্লাহ তা‘আলার সন্তুষ্টি ও ভালোবাসা লাভের পূর্বশর্ত হলো রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের পরিপূর্ণ অনুসরণ করা।

বর্তমান সমাজের অনেক লোকই ইসলামী বিধি-বিধান মেনে চলেন। তারা আল্লাহ তাআলার হুকুম-আহকাম মেনে চলার প্রতিও যত্নশীল। কিন্তু তাদের আমল ও কাজগুলো রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের পরিপূর্ণ সুন্নাত অনুসারে না হওয়ায় তা অসম্পূর্ণ থেকে যায় এবং অনেক ক্ষেত্রেই তা আল্লাহ তা‘আলার নিকট গ্রহণযোগ্য হয় না। একজন মুমিন ব্যক্তির প্রতিটি কাজ-ই যেন রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সুন্নাত অনুসারে হয়, সমাজের সকল শ্রেণীর মানুষের মাঝে যেন রাসূলের সুন্নাতের ব্যাপক প্রচার-প্রসার হয়, সেদিক বিবেচনা করেই লেখকের এই প্রচেষ্টা। তিনি মূলত “সুন্নাতী জীবন” শীর্ষক গ্রন্থে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ও তাঁর বরকতময় সান্নিধ্যপ্রাপ্ত সাহাবায়ে কেরামের ইসলামী বিধি-বিধান পালনের পদ্ধতি ও দৈনন্দিন জীবনের কার্যাবলী উপস্থাপনের প্রচেষ্টা চালিয়েছেন।

পিডিএফ ফাইল ডাউনলোড: সুন্নাতী জীবন

মহানবীর (সা.) জীবন প্রবাহ – প্রফেসর ড. এস. এম. আব্দুছ ছালাম

‘যে ফুলের খুশবুতে সারা জাহান মাতোয়ারা’ তিনি আমাদের প্রাণের নবী, প্রাণের ছবি, সারওয়ারে জাহান, সাইয়্যেদুল মুরসালীন, রাহমাতুল্লিল আলামীন, মানব মুকুট মহানবী (স.)। তাঁকে নিয়ে সীরাত সাহিত্য রচনার শেষ নেই। বহু ভাষায় অসংখ্য নবীজীবনী রচিত হয়েছে। উত্তম সমাজ গঠনে এবং মহাকল্যাণ প্রতিষ্ঠায় তাঁর অবদান সীমাহীন ত্যাগের মহিমায় উদ্দীপ্ত, উজ্জ্বল, প্রোজ্জ্বল। সেই মহা মানবের জীবনী বেশী বেশী রচিত হওয়াই স্বাভাবিক। প্রাণের অনেক মাধুরী ঢেলেও যেন প্রাণ ভরে না। একের পর এক অনেকেই লিখেছেন, তবুও যেন কারো প্রাণ পূর্ণ হয়নি।

মহানবীর (সা.) জীবন প্রবাহ - প্রফেসর ড. এস. এম. আব্দুছ ছালাম
মহানবীর (সা.) জীবন প্রবাহ – প্রফেসর ড. এস. এম. আব্দুছ ছালাম

বিশ্বনবী (স.) ব্যতীত কে রেখেছেন মানবজীবনের সকল ক্ষেত্রে মহিমাদীপ্ত অবদান। এ লেখার যেন শেষ নেই, বলারও শেষ নেই। মহানবী (স.) কে নিয়ে লেখা হয়েছে ইবনে হিশামের ‘আস-সীরাতুন নববীয়্যাহ’, শিবলী নোমানীর ‘সীরাতুন নবী’, গোলাম মোস্তফার ‘বিশ্বনবী’, মোহাম্মদ আকরম খাঁর ‘মোস্তফা-চরিত’, মাওলানা আব্দুল খালেকের ‘সাইয়্যেদুল মুরসালীন’, মাওলানা ছফিউর রহমানের ‘আর রাহীকুল মাখতুম’ এবং আবুল হাসান আলী নদভীর ‘নবীয়ে রহমত’ ইত্যাদি অসংখ্য অসাধারণ তথ্যবহুল ও যুক্তিপূর্ণ গ্রন্থ।

ড. এস.এম. আব্দুছ ছালাম রচিত ‘মহানবীর (স.) জীবনপ্রবাহ’ আরেকটি মূল্যবান সীরাত সংযোজন। জাহেলি যুগের অনেক আঁধার পেরিয়ে একত্ববাদের ঐশীবার্তা নিয়ে মানবমুক্তির যে সিংহদ্বার উন্মোচন করলেন নবী মুহাম্মাদুর রাসূলুল্লাহ (স.), তার একটি উজ্জ্বল, সার্থক বাণীময় চিত্রায়ন এই সীরাত গ্রন্থটি। ইহা বিশ্বনবীর সুদীঘর্ জীবন ও ব্যাপক কর্মকাণ্ডের নিখুঁত প্রতিচ্ছবি।

পিডিএফ ফাইল ডাউনলোড: মহানবীর (সা.) জীবন প্রবাহ

আরবী সাহিত্য প্রতিভা – প্রফেসর ড. এস. এম. আব্দুছ ছালাম

আরবী ভাষা সেমিটিক ভাষাগোষ্ঠীর অন্তর্গত। শব্দের প্রাচুর্য, অর্থব্যঞ্জনা, ভাবের গভীরতা ঈদৃশ গুণাবলী সম্পন্ন আরবী ভাষা পবিত্র কুরআন ও হাদীসে নববীর ভাষা। তাই কুরআন ও হাদীসে বুৎপত্তি লাভের জন্য আরবী ভাষা ও সাহিত্য সম্পর্কে জ্ঞান লাভ করা অতীব জরুরী। এ সম্পর্কে ‘উমার ইবনুল খাত্তাব (রা.) বলেন-

(تعلموا العربية و علموها الناس) তোমরা আরবী ভাষা শিক্ষা করো এবং মানুষদেরকে তা শিক্ষা দাও। তিনি আরো বলেন, (تعلموا الفرائض فإنها من دينكم  وتعلموا العربية فإنها من دينكم) তোমরা ফারাইয ও আরবী ভাষা শিক্ষা লাভ করো। কেননা তা দ্বীনের সাথে সম্পর্কিত বিষয়। ইমাম ইবনু তাইমিয়া (রহ.) বলেন, (إن اللغة العربية من الدين، ومعرفتها فرض واجب، فإن فهم الكتاب والسنة فرض، ولا يفهم الا باللغة العربية، وما لا يتم الواجب إلا به فهو واجب.) আরবী ভাষা দ্বীনের অন্তর্গত। তা শিক্ষা লাভ করা ওয়াজিব। কেননা কুরআন ও হাদীস বুঝা ফরয। আর তা আরবী ভাষা জানা ছাড়া বুঝা সম্ভব নয়। আর যা ছাড়া ওয়াজিব পূর্ণ হয় না তাও ওয়াজিব।

আরবী সাহিত্য প্রতিভা - প্রফেসর ড. এস. এম. আব্দুছ ছালাম
আরবী সাহিত্য প্রতিভা – প্রফেসর ড. এস. এম. আব্দুছ ছালাম

সঙ্গত কারণেই আরবী ভাষা ও সাহিত্যের সাথে মুসলমানদের সম্পর্ক সুনিবিড়। সেজন্য ভারতীয় উপমহাদেশে ইসলামের আগমনের পর থেকেই এদেশের মুসলমানগণ আরবী ভাষা ও সাহিত্যের সাথে পরিচিত। বর্তমানেও এ ধারা অব্যাহত রয়েছে। দেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠ বিশ্ববিদ্যালয়, মাদরাসা, এমনকি কলেজেও আরবী সাহিত্য পাঠ্যসূচীভুক্ত। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য যে, এ বিষয়ে বাংলা ভাষায় রচিত গ্রন্থ নিতান্তই অপ্রতুল বললে অত্যুক্তি হবে না। তাই এ দৈন্যদশা কিছুটা হলেও লাঘবের জন্য বাংলা ভাষাভাষী পাঠকদের কাছে আরবী সাহিত্যের নীলাভ আকাশের কতিপয় অত্যুজ্জ্বল নক্ষত্রের জীবনালেখ্য ও অবদান তুলে ধরার জন্য এ ক্ষুদ্র প্রয়াস-ই হল ‘আরবী সাহিত্য প্রতিভা’ শীর্ষক গ্রন্থটি।

পিডিএফ ফাইল ডাউনলোড: আরবী সাহিত্য প্রতিভা

Leave a Reply

Your email address will not be published.